বৃহস্পতিবার রাত ৮:২৭, ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ২২শে অক্টোবর, ২০২০ ইং
প্রতিবেদন
বিতর্কিত মুফতি ফয়জুল্লার বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেই বিক্ষোভের ভিডিও ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অনিয়ম-দুর্নীতির ভয়াবহ চিত্র ‘আঁরা টোকাই ন’, সী-বিচের দুই খেটে-খাওয়া শিশু সামাজিক আন্দোলন নিয়ে তারা রাজনীতি করছে: তথ্যমন্ত্রী নোয়াখালীতে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন: বিক্ষুব্ধ সারাদেশ শিমরাইলকান্দি খাদ্যগুদামের সামনে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১ আবুল কাসেম ফজলুল হকের আটাশ দফা নিয়ে ভার্চুয়াল আলোচনা সরকারি রোষে ভারত ছাড়ল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জিয়াকে নিয়ে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগে তারানা-সাজুর বিরুদ্ধে মামলা করোনাক্রান্তের পর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের মৃত্যু শিমরাইলকান্দি রাস্তার সংস্কার দাবিতে মানববন্ধন: মেয়রের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ কাজীপাড়া মৌলভীহাটি মসজিদের পুকুর এখন কচুক্ষেত

এ মৃত্যুর দায় কার?

শামীম আহমেদ

শিমরাইলকান্দি চাষী ভবনের সামনে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় আরিফ নিহত। কালীবাড়ি মোড় থেকে শিমরাইলকান্দি গ্যাসফিল্ডস পর্যন্ত ঝুকিপূর্ণ রাস্তার কারণেই মূলত এ দুর্ঘটনা।

কায়দা করে বেঁচে থেকো তোমরা, আমি হয়তো পারবো না। মানসিক যন্ত্রণা তাড়া করছে আমায়। এভাবেই কেন মরতে হবে? এ দায় কে নিবেন? ট্রাকচালক, ট্রাক মালিক সমিতি, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়ন, রিকশাচালক, ইট-বালু ব্যবসায়ী, সুশীল সমাজ, পৌরসভা, বিআরটিএ, জেলা পুলিশ, জেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক দলগুলো, সমাজিক সংগঠনগুলো, মসজিদ কমিটি, মসজিদের ঈমাম, যে মারা গেছে সে নিজে, নাকি রাষ্ট্র? শিমরাইলকান্দি চাষী ভবনের সামনে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় আরিফ নিহত।

কালীবাড়ি মোড় থেকে শিমরাইলকান্দি গ্যাসফিল্ডস পর্যন্ত ঝুকিপূর্ণ রাস্তার কারণেই আরিফ মারা গেছে, যে কেউ মরতে পারতো আমি,তুমি,সে। রাস্তা সংস্কার, বিভিন্ন অবৈধ গাড়ি পার্কিং এবং রাস্তার পাশে ইট-বালু ব্যবসা, সরকারি জায়গা দখল করে অবৈধ দোকানপাট করে রাস্তা সংকুচিত অবশ্যই এগুলো উচ্ছেদ করতে হবে।

আরেকজন আরিফ মারা যাওয়ার আগেই ব্যবস্থা নিতে হবে। আরিফের মৃত্যুর জন্য যারা নিজেদের একটু হলেও দায়ী মনে করছেন, আমিও তাদের একজন। আপনার নিরবতা কেড়ে নিতে পারে আপনার পরিবারের কারো জীবন।

নিহত আরিফ (ফাইল ফটো)

“জানমালের নিরাপত্তা নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার।” আর নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার লুণ্ঠনকারীরা দেশদ্রোহী।

আরো পড়ুন> শিমরাইলকান্দি সড়ক দুর্ঘটনায় আরিফ নিহত

আরিফ আর ফিরে আসবে না। আরেকজন আরিফ মারা যাওয়ার আগেই ব্যবস্থা নিতে হবে। আরিফের মৃত্যুর জন্য যারা নিজেদের একটু হলেও দায়ী মনে করছেন, আমিও তাদের একজন। আপনার নিরবতা কেড়ে নিতে পারে আপনার পরিবারের কারো জীবন। নিজের পরিবারের একজন মারা যাওয়ার আগেই সচেতন হোন।

আমার লেখা পড়ে হয়তো আমাকে শত্রু ভাবা শুরু হয়ে যাবে! তাতে কিচ্ছু যায় আসে না! আমি কায়দা করে বাঁচতে চাই না। সুশীল সমাজ তোমরা কায়দা করে বেঁচে থেকো।

লেখক: শামীম আহমেদ

সভাপতি, নোঙর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখা 

ক্যাটাগরি: মিনি কলাম

ট্যাগ:

  • 133
    Shares

Leave a Reply