সোমবার সকাল ১১:৫১, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং
প্রতিবেদন
শিখো-শিখাও পদ্ধতিতে নতুন মডেলের স্কুল হিন্দু থে‌কে মুসলিম, ফের হিন্দু হয়ে ‘বিবা‌হিত’ সাধু! ভাষাসৈনিক মুহম্মদ মুসার ১ম মৃত্যুবার্ষিকী: তার একটি ভিডিও বক্তব্য ময়মনসিংহের কেওয়াটখালী পাওয়ার গ্রিডে আগুন: বিভাগজুড়ে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন নারায়ণগঞ্জ ট্র্যাজেডি: ইমাম-মুয়াজ্জিনসহ মৃত ২০, আশঙ্কাজনক আরো ১৯ করোনায় মারা গেলেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি প্রখ্যাত সাংবাদিক রাহাত খান আর নেই ইউ‌নিয়ন প‌রিষ‌দে মারামা‌রি: প্রশ্ন‌বিদ্ধ চেয়ারম‌্যান প্রশ্নবিদ্ধ প্রথম আলো: মাস্ক ব্যবহার নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো জরিপ বাস ভাড়া বাড়ানোর প্রতিবাদে ফুঁসে উঠছে মানুষ নেত্র‌কোনা হাও‌রে ভ্রম‌ণে এসে ১৭ হা‌ফেজ-আ‌লে‌মের মৃত্যু গরুর চামড়ার গোশত অনেক সুস্বাদু ও পুষ্টিকর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়ও দৈহিক দূরত্বের কোনো বালাই নেই!

জুনায়েদ আহমেদ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার প্রতিদিন আশঙ্কজনকভাবে বাড়ছে। নিত্যদিন আক্রান্ত ও মৃতের নতুন নতুন রেকর্ড গড়ছে, ভাঙছে। এমন ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিতেও সারা দেশের মত ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরেও সীমিত পরিসরে দোকানপাট খুলে দেওয়ায় মানুষের আনাগোনা ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। রাস্তাঘাট,  বাজার, দোকানপাট, ব্যাংক, ডাক অফিসসহ সব জায়গায় মানুষের উপচেপড়া ভিড়। কারোমধ্যে দৈহিক দূরত্ব বজায় রাখার কোনো বালাই নেই। অবস্থা দেখে বুঝার কোনো উপায় নেই যে বর্তমানে প্রাণঘাতী ভয়ঙ্কর করোনা পরিস্থিতি চলছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার এগারোটার দিকে কাচারি পুকুরপাড় এর পূর্বদিকে পূবালি ব্যাংক ও মসজিদ রোডের ইসলামি ব্যাংকে গিয়ে দেখা যায়, নারী-পুরুষের দীর্ঘ লাইন। একজনের গায়ে আরেকজনর গা লেগে আছে। অথচ কারো কোনো হুশ নেই। ব্যাংকের দায়িত্বরত নিরাপত্তাকর্মীরা পর্যন্ত এ ভিড় সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন।

একই অবস্থা দেখা যায়, জগৎবাজার, ফারুকি বাজার ও কালিবাড়ি মোড়েও। সেখানেও পুরো বাজার মানুষে গিজগিজ করছে। প্রত্যেকটা দোকানের সামনেই মানুষের ব্যাপক উপস্থিতি। অবস্থা এমন যে পা ফেলানো দায়। কালিবাড়ি মোড়ের ফুটপাত এবং ব্রিজের নীচে ফল ও বিভিন্ন শাক-সবজি নিয়ে বসতে দেখা গেছে অনেককে। এতে মোড়ের ভিড় আরো বেড়েছে।

এমন পরিস্থিতি চললেও আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর তেমন কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। তবে মাঝেমধ্যে টহলরত পুলিশের গাড়ি দেখা গেলেও তারা জনগণের অসতর্কভাবে চলাফেরার বিষয়ে কিছু বলছেন না, নিচ্ছেন না কোনো ব্যবস্থাও। তারা তাদের মত টহল দিয়ে চলে যাচ্ছেন, জনগণ জনগণের মত।

এদিকে সকাল থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত সরকার ‘সীমিত আকারে’ দোকানপাট খোলার অনুমতি দিলেও এখনো দোকানদাররা মোবাইলকোর্ট দ্বারা জরিমানার শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ করছেন দোকানিরা। দোকান খুলে তারা একটা আতঙ্কের মধ্যে থাকেন বলে জানান।

জুনায়েদ আহমেদ: স্টাফ রিপোর্টার  

ক্যাটাগরি: প্রধান খবর,  শীর্ষ তিন

ট্যাগ:

  • 7
    Shares

Leave a Reply