শুক্রবার রাত ৮:৪৯, ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ. ৭ই আগস্ট, ২০২০ ইং
প্রতিবেদন
নেত্র‌কোনা হাও‌রে ভ্রম‌ণে এসে ১৭ হা‌ফেজ-আ‌লে‌মের মৃত্যু গরুর চামড়ার গোশত অনেক সুস্বাদু ও পুষ্টিকর অথৈ জলে ভাসছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নিম্নাঞ্চল (ভিডিও) ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফেন্সিডিলসহ আটক ত্রিমু‌খী দু‌র্যো‌গেও জ‌মে উঠে‌ছে ঐ‌তিহ‌্যবাহী না‌জিরপুর কুরবা‌নী হাট ব্রাহ্মণবাড়িয়া হার্ট ফাউন্ডেশনের হার্ট অ্যাটাক! দুর্গাপু‌রে কে‌ন বাড়‌ছে আত্মহত‌্যা, প্র‌তিকার কী? সাংবাদিক সম্মেলনে গোঁজামিল বক্তব্য: ফেঁসে গেলেন ডাঃ সাঈদ শাহেদের আরেক নাম ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ডাক্তার সাঈদ করোনায় মারা গেলেন যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বাবুল সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ফেন্সিডিলসহ আটক

ডিডি প্রতিবেদক

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি মাসুম বিল্লাহ ও তার এক সহযোগীকে ফেন্সিডিলসহ আটক করেছে সরাইল থানা পুলিশ। আজ মঙ্গলবার বিকেলে তাকে আটক করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সরাইল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুর রহমান।

যোগাযোগ করা হলে এএসপি আনিসুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, ‘ছাত্রলীগের ওই সাবেক নেতার কাছ থেকে ছয় বোতল ফেন্সিডিল পাওয়া গেছে। আটকের সময় তিনি ও তার সহযোগী এনাম হক পুলিশের সহকারি উপপরিদর্শক (এএসআই) আলাউদ্দিনকে মারধর করেছেন।’

তবে মিডিয়ার সাথে কথা বলার বিষয়ে আলাউদ্দিনকে নিষেধ করা হয়েছে। মুখ খুলছেন না থানা কর্তৃপক্ষও। এদিকে মাসুম বিল্লাহকে আটকের পরপরই সরাইল থানায় অবস্থান করছেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম ও পুরুষ ভাইস আবু হানিফসহ মাসুম বিল্লাহর কর্মী-সমর্থকরা। এ ঘটনায় একাধিক পুলিশ সদস্য বলছেন, এমন অবস্থা হলে পুলিশের কেউই তো কাজ করতে চাইবে না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে টহল পুলিশের তল্লাশিতে পড়েন মাসুম বিল্লাহ। সরাইল থানার এএসআই মো. আলাউদ্দিন সঙ্গীয় এক কনস্টেবল নিয়ে মাসুমকে তল্লাশি করতে গিয়ে লাঞ্ছিত হন। তবুও ওই পুলিশ অফিসার মাসুমের দেহ তল্লাশি থেকে পিছ পা হননি। এক পর্যায়ে তার কাছে থাকা ছয় বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। এ অবস্থায় মাসুম আবার পুলিশ কর্মকর্তা আলাউদ্দিনকে মারধর করেন। একপর্যায়ে একটি সিএনজি অটোরিকশায় করে মাসুম বিল্লাহ সরাইল থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। মাসুমকে থানায় নেয়ার পর পরই সরাইলের একাধিক জনপ্রতিনিধি পুলিশকে নানাভাবে চাপ দিতে থাকেন তাকে ছেড়ে দেয়ার জন্য।

সহকারি পুলিশ সুপার (সার্কেল সরাইল) মো. আনিছুর রহমান সাংবাদিকদেরকে বলেন, মাসুম বিল্লাহকে তল্লাশি ও ফেনসিডিলসহ আটকের পর পুলিশকে তিনি লাঞ্ছিত করে। তার বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে সরাইল থানায় মাসুম বিল্লাহসহ তার এক সহযোগিকে গ্রেফতারের ঘটনায় নিউজ করেছে ডেইলি স্টার, মানব জমিন ও কালের কণ্ঠ। তবে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো এখনো পর্যন্ত নিশ্চুপ। ব্রাহ্মণবাড়িয়া টুয়েন্টিফোর নামে একটি পোর্টাল তাদের ফেসবুক পেজে সংক্ষেপে বিষয়টি জানান দিয়ে কিছুক্ষণ পর আবার ডিলিট বা হাইড করে দেয়। অন্যদিকে এ ঘটনা এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। চলছে সমালোচনা।

ক্যাটাগরি: প্রধান খবর,  শীর্ষ তিন

ট্যাগ:

  • 685
    Shares

Leave a Reply