সোমবার সন্ধ্যা ৭:৩৪, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ. ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

ব্যক্তিগত সমস্যার দায় কার?

শরীফ উদ্দীন রনি

মানুষের জীবনমাত্রই সংকটপূর্ণ। অসংখ্য সমস্যার মাঝেই মানুষের বসবাস। সমস্যার ধরন বিভিন্নমুখী। কেউবা ব্য‌ক্তিগত সমস্যার মাঝে বসবাস করে। আবার যার ব্য‌ক্তিগত সমস্যা নেই সে হয়তো সামা‌জিক সমস্যায় ভোগে, অথবা রাষ্ট্রীয় সমস্যায়। সম্যার যেমন অন্ত নেই, সমাধানপ্র‌ক্রিয়ারও শেষ নেই। যেখা‌নে সমগ্র পৃ‌থিবীই সমস্যায় প‌রিপূর্ণ, সেখানে ব্যক্তির সমস্যা সমাধান ব্য‌ক্তিকেই করা উ‌চিত।

আরো পড়ুন> কল্যাণকর ভাবনার তীব্র সংকট

মানুষ তার ব্য‌ক্তিসমস্যায় নিজের ভুল চিন্তা-ভাবনার কারণেই সম্মুখীন হয়ে থা‌কে। তার জন্য অন্য কেউ নয়, তার ব্য‌ক্তিগত জীবনব্যবস্থাই দায়ী। সে তার ব্য‌ক্তিগত জীবনের উন্নয়নের কথা ভাবতে গিয়ে সাম‌গ্রিক জীবনের কথা ভাবে না। বরং নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত থাকে। সমস্যার যখন সম্মুখীন হয়, তখন অন্যের দ্বারস্থ হওয়ার কথা ভাবে। অথচ প্রকৃ‌তির একটা ধ্রুব নিয়ম হচ্ছে- প্রকৃতিকে আমরা যা দেই, সে আমা‌দের তাই ফেরত দেয়। তাই ব্য‌ক্তিগত সমস্যায় আমাদের পাশে অন্যকে খোঁজে পাওয়া যায় না।

“বে‌শিসংখ্যক মানুষই যেহেতু শুধুই আত্মভাবনায় বিভোর, তাই তাদের ব্যা‌ক্তিগত সমস্যা সমাধা‌নে অন্যের দারস্থ না হয়ে নিজেই তার সমস্যা সমাধানের কথা ভাবতে পারে। একান্ত ব্য‌ক্তিগত সমস্যার জন্য অন্য কাউ‌কে দোষারোপ না করে নিজের দিকে ফিরে আসাই শ্রেয়”

অনেক সময় এমন হয়- ব্য‌ক্তি তার ব্য‌ক্তিগত চা‌হিদা মেটাতে গি‌য়ে সমস্যায় প‌তিত হয়। তখন মান‌সিক এক ব্যা‌ধিতে আক্রান্ত হয়ে পুরো ব্যবস্থাকেই দোষারোপ করতে থা‌কে। অথচ ব্য‌ক্তি ক‌স্মিকালেও সাম‌গ্রিক সমস্যা নিয়ে ভাবতে গিয়ে এ ধরনের ব্য‌ক্তিগত সমস্যার সম্মুখীন হয়‌নি। হ্যাঁ, তবে সাম‌গ্রিককে নিয়ে ভাবতে গিয়ে য‌দি সে সমস্যায় পড়ে, তবে সাম‌গ্রিকের উ‌চিত তখন তার সমস্যা সমাধানে এ‌গিয়ে আসা। যাদের সংখ্যা আমাদের এ সমাজে খুব অল্পই।

‌“কিছু সমস্যা এমন আছে, যেগুলো ক্রমান্বয়ে ব্য‌ক্তিগত থেকে সা‌র্বিক সমস্যায় রূপ নেয়। সেসব সমস্যা অবশ্য ব্য‌ক্তির একার পক্ষে সমাধা‌ন করা সম্ভবপর নয়। তবুও সে ব্য‌ক্তিগতভাবে সমাধানের পন্থা আ‌বিষ্কার করতে পারে এবং তা নিজের সমস্যা সমাধানে প্রয়োগ করতে পারে।”

বে‌শিসংখ্যক মানুষই যেহেতু শুধুই আত্মভাবনায় বিভোর, তাই তাদের ব্যা‌ক্তিগত সমস্যা সমাধা‌নে অন্যের দারস্থ না হয়ে নিজেই তার সমস্যা সমাধানের কথা ভাবতে পারে। একান্ত ব্য‌ক্তিগত সমস্যার জন্য অন্য কাউ‌কে দোষারোপ না করে নিজের দিকে ফিরে আসাই শ্রেয়। কারণ সে তার নিজের ভুলগুলো সমস্যায় পড়লে খুব ভালভাবেই চি‌হ্নিত করতে পারে, য‌দি তা নিয়ে ভাবে। আর বু‌দ্ধিমানমাত্রই ভাবুক। সে যখনই সমস্যায় নিপ‌তিত হ‌য়, তখনই সমস্যা সমাধানের ভাবনায় নিজেকে নিয়ো‌জিত করে।

লেখকের সব কলাম

‌কিছু সমস্যা এমন আছে, যেগুলো ক্রমান্বয়ে ব্য‌ক্তিগত থেকে সা‌র্বিক সমস্যায় রূপ নেয়। সেসব সমস্যা অবশ্য ব্য‌ক্তির একার পক্ষে সমাধা‌ন করা সম্ভবপর নয়। তবুও সে ব্য‌ক্তিগতভাবে সমাধানের পন্থা আ‌বিষ্কার করতে পারে এবং তা নিজের সমস্যা সমাধানে প্রয়োগ করতে পারে। এতে ধীরে ধীরে তার এ পন্থাই সাম‌গ্রিক সমস্যা সমাধানের পন্থা হতে পারে। কারণ সা‌মগ্রিক সমস্যাটার শুরু হয়ে‌ছিল ব্য‌ক্তি থেকেই। তাই ব্যক্তির একার সমস্যাটা সমধান আপনাতেই অ‌ধিকাংশ সময় বিদ্যমান থাকে।

লেখকের ব্লগ

শরীফ উদ্দীন রনি : বার্তা সম্পাদক, দেশ দর্শন

ক্যাটাগরি: ধর্ম-দর্শন-বিজ্ঞান,  মিনি কলাম

ট্যাগ: শরীফ উদ্দীন রনি

Leave a Reply