শুক্রবার রাত ১০:২১, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ. ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
Advertisement
সর্বশেষ খবর:
শেষ হল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভাষা সাহিত্য সাংবাদিকতা কোর্স মুফতি মুবারকুল্লাহকে আদ-দাঈর `লেখক সম্মাননা স্মারক` প্রদান মহামন্দার শঙ্কায় বিশ্বঅর্থনী‌তি: অচলায়ত‌নে বাংলা‌দেশ মুহুরীনির্ভর আদালত ন‍্যায়বিচারের প্রতিবন্ধক আমি কেন অনলাইনে শিক্ষা ও জ্ঞান বিতরণের বিরোধী: জাকির মাহদিন ‌তিতাস ট্রেনের দুর্নী‌তি-অব্যবস্থাপনা চর‌মে: যাত্রীভোগা‌ন্তি সীমাহীন বিএমএসএফ`র উ‌দ্যোগে ঢাকায় `জার্নালিস্ট শেল্টার হোম`: সব সাংবাদিকের জন্য উন্মুক্ত মুখের ভাষা বাংলা, অস্তিত্বের ভাষা নয়: জাকির মাহদিন ভারত‌কে ব‌লে‌ছি শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে যা যা করা দরকার সবই করুন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী অপ‌টিমাম আই‌টি‌ ব্রাহ্মণবা‌ড়িয়ায় শুরু হচ্ছে ফ্রিল্যা‌ন্সিং মাস্টার কোর্স শুক্রবার ঢাকায় আদ-দাঈর কো‌র্সে জা‌কির মাহ‌দি‌নের ক্লাস: সবার জন্য উন্মুক্ত কেন্দুয়া-নেত্রকোনা আ’লীগ নেতাকর্মী‌দের দ‌লে দ‌লে বিএনপিতে যোগদান

মহামন্দার শঙ্কায় বিশ্বঅর্থনী‌তি: অচলায়ত‌নে বাংলা‌দেশ

ইমতিয়াজ সৌরভ

সুদের হার বাড়ায় কমেছে ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ। কমেছে, কর্মসংস্থানের সুযোগও। বাণিজ্য, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হ্রাস পাওয়ায় মূূল্যবৃদ্ধির এই বাজারে ভারসাম্য খুঁজে পাওয়াই কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলির কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মত অর্থনীতিবিদদের।

চরম মন্দার দিকে অগ্রসর হচ্ছে বিশ্ব অর্থনীতি- চলতি বছরের শুরুতে এমন গুঞ্জন শোনা গেলেও যত দিন যাচ্ছে ততই জোরালো হচ্ছে এই আশঙ্কা। সম্প্রতি বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ২২টি সরকারি-বেসরকারি খাতের অর্থনীতিবিদের মতামত নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম। তাতে দেখা গেছে, প্রতি ১০ জন অর্থনীতিবিদের ৭ জনই ২০২৩ সালে বৈশ্বিক মন্দার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

সম্প্রতি ২০২৩ সালে ভয়াবহ বৈশ্বিক মন্দার শঙ্কা প্রকাশ করেছে খোদ বিশ্বব্যাংক। ধারাবাহিক মুদ্রাস্ফীতি মোকাবিলায় বেশিরভাগ দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার বাড়ানোয় এ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে মত তাদের। গ্লোবাল রিসেশন প্রোবাবিলিটি মডেলের জন্য পরিচিত ফ্লোরিডাভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান নেড ডেভিস রিসার্চ বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা আরও জোরালো করেছে। তারা বলছে, আগামী বছর মন্দা দেখা দেওয়ার হার ৯৮ দশমিক ১ শতাংশ।

সুদের হার বাড়ায় কমেছে ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ। কমেছে, কর্মসংস্থানের সুযোগও। বাণিজ্য, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হ্রাস পাওয়ায় মূূল্যবৃদ্ধির এই বাজারে ভারসাম্য খুঁজে পাওয়াই কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলির কাছে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মত অর্থনীতিবিদদের।

যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি বিশ্বের অপর দেশগুলোতেও আশা সঞ্চারের মতো কোনও ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে না। ইউরোপের তিনটি বৃহৎ অর্থনীতি জার্মানি, ইতালি ও যুক্তরাজ্য আগামী বছর দীর্ঘ মন্দায় পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। বিশেষ করে ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধে সৃষ্ট জ্বালানি সংকট এর অন্যতম কারণ।

২০২৩ সালে ইউরো অঞ্চলে মাত্র শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি প্রত্যাশা করছে অর্গানাইজেশন ফর ইকনোমিক কো-অপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট। যা অঞ্চলটির বেশিরভাগ দেশের আগামী বছর মন্দায় পতিত হওয়ার ইঙ্গিত।

এশীয় প্রশান্ত অঞ্চলে অর্থনৈতিক সংকোচন এড়িয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা থাকলেও চীনের ‘জিরো কোভিড’ লকডাউন ও সীমান্তে বিধিনিষেধে, অঞ্চলটির প্রবৃদ্ধিতে বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পরবে বলে মত বিশ্লেষকদের। এমন পরিস্থিতিতে মন্দার শঙ্কা এড়িয়ে যাওয়া কঠিন বলেও মনে করছেন তারা।

ক্যাটাগরি: অপরাধ-দুর্নীতি,  শীর্ষ তিন,  সারাদেশ

ট্যাগ:

Leave a Reply