শুক্রবার রাত ২:৪৫, ২০শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ. ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
Advertisement
সর্বশেষ খবর:
১২৫ বছরের বৃদ্ধা: গিনেস বুকে নাম উঠানোর প্রসঙ্গ নিউক্লিয়ার রেডিয়েশন শোষণ করে সূর্যমুখী শেষ হল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভাষা সাহিত্য সাংবাদিকতা কোর্স মুফতি মুবারকুল্লাহকে আদ-দাঈর `লেখক সম্মাননা স্মারক` প্রদান মহামন্দার শঙ্কায় বিশ্বঅর্থনী‌তি: অচলায়ত‌নে বাংলা‌দেশ মুহুরীনির্ভর আদালত ন‍্যায়বিচারের প্রতিবন্ধক আমি কেন অনলাইনে শিক্ষা ও জ্ঞান বিতরণের বিরোধী: জাকির মাহদিন ‌তিতাস ট্রেনের দুর্নী‌তি-অব্যবস্থাপনা চর‌মে: যাত্রীভোগা‌ন্তি সীমাহীন বিএমএসএফ`র উ‌দ্যোগে ঢাকায় `জার্নালিস্ট শেল্টার হোম`: সব সাংবাদিকের জন্য উন্মুক্ত মুখের ভাষা বাংলা, অস্তিত্বের ভাষা নয়: জাকির মাহদিন ভারত‌কে ব‌লে‌ছি শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে যা যা করা দরকার সবই করুন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী অপ‌টিমাম আই‌টি‌ ব্রাহ্মণবা‌ড়িয়ায় শুরু হচ্ছে ফ্রিল্যা‌ন্সিং মাস্টার কোর্স

নিউক্লিয়ার রেডিয়েশন শোষণ করে সূর্যমুখী

সোহাগ মাহবুব হাসান

সমস্ত ভূমিভিত্তিক উদ্ভিদের মতো সূর্যমূখীর মূলও মাটি থেকে পুষ্টি, জল এবং অন্যান্য খনিজগুলিকে টেনে বের করে অত্যন্ত দক্ষ প্রক্রিয়ায় তাদের ডালপালা এবং পাতায় সংরক্ষণ করে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দস্তা, তামা এবং অন্যান্য তেজস্ক্রিয় উপাদান।

আপনি জানেন কি, সূর্যমুখী নিউক্লিয়ার রেডিয়েশন শোষণ করে? তাহলে আসুন জেনে নেই বিস্তারিত। হিরোশিমা, ফুকুশিমা এবং চেরনোবিল পারমাণবিক বিপর্যয়ের পর ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাজুড়ে বিপুল পরিমাণে সূর্যমুখী চারা রোপণ করা হয়েছে। যেন মাটি থেকে বিষাক্ত ধাতু এবং বিকিরণ শোষণ করে পরিবেশ বাসযোগ্য করানো যায়। নতুন গবেষণায় এখন এটা প্রমাণিত যে সূর্যমুখী দেখতে যতটা সুন্দর, তার থেকেও পরিবেশের জন্যে এটা বেশি প্রয়োজনীয়।

সূর্যমুখী- যাকে পরিবেশ বিজ্ঞানীরা “Hyperaccumulators– plants ” বলে। এ ধরনের উদ্ভিদের টিস্যুতে উচ্চঘনত্বের বিষাক্ত পদার্থ গ্রহণ করার ক্ষমতা রয়েছে। সমস্ত ভূমিভিত্তিক উদ্ভিদের মতো সূর্যমূখীর মূলও মাটি থেকে পুষ্টি, জল এবং অন্যান্য খনিজগুলিকে টেনে বের করে অত্যন্ত দক্ষ প্রক্রিয়ায় তাদের ডালপালা এবং পাতায় সংরক্ষণ করে। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো দস্তা, তামা এবং অন্যান্য তেজস্ক্রিয় উপাদান।

সূর্যমুখীর শোষণ পক্রিয়াটি  আধুনিক পরিবেশগত বিপর্যয় নিরাময়ে অত্যন্ত ধীরগতির। এরপরও পরিবেশদূষণ বন্ধ করতে বিভিন্ন ধরনের সূর্যমুখী জাতের কার্যকারিতা নিয়ে গবেষণা চলছে। তবে ফুকোশিমায় সুনামি-পরবর্তী দূর্ঘটনায় পরিবেশ থেকে তেজস্ক্রিয়তা দূর করতে সূর্যমুখীর বাগান অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক ফলাফল প্রদান করেছে ।

পারমাণবিক বিকিরণ শোষণ করার সবচেয়ে কার্যকর, অ-আক্রমণাত্মক উপায় হিসাবে সূর্যমুখীর ভূমিকা অনন্য। এ পক্রিয়ায় জাপানিরা তাদের নিউক্লিয়ার রেডিয়েন্স আক্রান্ত এলাকাগুলোকে দূষণমুক্ত করছে৷ পরিবেশ রক্ষায় সূর্যমুখীর এ অবদান এটাই প্রমাণ করে- প্রকৃতি নিজেই নিজের দেখাশোনা করার জন্যে যথেষ্ট।

সোহাগ মাহবুব হাসান

লেখক ও ইতিহাস গবেষক

ক্যাটাগরি: বিশেষ প্রতিবেদন,  শীর্ষ তিন,  সারাদেশ

ট্যাগ:

Leave a Reply